৬৮
লোকেশন
১১১
আর্টিকেল
১২০
গ্রুপ ট্যুর
২০০০০+
গ্রুপ মেম্বার
মাধবকুন্ড জলপ্রপাত ও হাকালুকি হাওর
লেখকঃ


বিকাল ৪.০০ টার কালনি এক্সপ্রেসে করে আমরা ৫ জন রওনা দেই সিলেটের কুলাউরা এর উদ্দেশ্যে।আগেই ট্রেনের টিকিট কেটে রাখি।হুট করেই প্ল্যান হুট করেই যাওয়া।ইচ্ছা ছিলো মাধবকুন্ড জলপ্রপাত,হাকালুকি হাওর ও চা বাগান দেখা।
রাত ১০.০০ টায় পৌছে যাই কুলাউরা স্টেশনে, সেখান থেকে CNG নিয়ে জুরি বাজারে চলে যাই সেখানে আত্নীয় বাসা হওয়ায় রাতটা ওখানেই কাটাই।সকাল ৭.০০ টায় নাস্তা করে বের হই মাধবকুন্ড জলপ্রপাত দেখার উদ্দ্যেশে।
আপনারা রাত ১০.০০ টার উপবন ট্রেনে যাবেন,সকাল ৬.০০/৬.৩০ টার মদ্ধে কুলাউরা পৌছে যাবেন।সেখান থেকে রিজার্ভ CNG নিয়ে ডাইরেক্ট চলে যাবেন মাধবকুন্ড। আর একটা গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো আগে থেকেই ফিরতি ট্রেনের টিকিট কেটে রাখবেন।

মাধবকুন্ড জলপ্রপাত : মাধবকুণ্ড জলপ্রপাত, যা বাংলাদেশের সুউচ্চ জলপ্রপাত হিসেবে পরিচিত। মাধবকুণ্ড জলপ্রপাত সিলেটের মৌলভীবাজার জেলার বড়লেখা উপজেলায় অবস্থিত। মাধবকুণ্ড যাওয়ার উত্তম সময় হচ্ছে বর্ষাকাল। এ সময় ঝর্ণা পানিতে পূর্ণ থাকে। মাধবকুন্ড যাওয়ার রাস্তাটা এককথায় অসাধারন।জুরি বাজার পার হওয়ার পর থেকে চা বাগানের মাঝখান দিয়ে রাস্তা,রাস্তার দুই পাশে অসংখ্য টিলা , এই সৌন্দর্য নিজের চোখে না দেখলে বুঝতে পারবেন না।মাধবকুন্ড জলপ্রপাত কে ঘিরে গড়ে উঠেছে মাধবকুন্ড ইকো পার্ক যেখানে প্রবেশের সাথে সাথে মনটা ভরে উঠবে।জলপ্রপাতে গোসলের সময় সাবধানতা অবলম্বন করবেন, ঝর্নার খুব কাছে চলে যাবেন না।খুব সম্ভবত এখন পর্যন্ত ১৩ জন মারা গেছে মাধবকুন্ড জলপ্রপাতে,১০ জন লোকাল ৩ জন টুরিস্ট।

হাকালুকি হাওর : এই হাওরের আয়তন ২০,৪০০ হেক্টর। ২৩৬টি বিল নিয়ে এই হাকালুকি হাওর। বিলগুলোতে রয়েছে বিভিন্ন প্রজাতির মাছ। বর্ষাকালে এই হাওরের দৃশ্য দেখা যায় ভিন্নরুপে। চারদিকে শুধু পানি আর পানির খেলা। সে এক অপরুপ দৃশ্য। তবে শীতকালে হাওর সাজে এক অপরুপ সাজে। এ সময় অতিথি পাখিরা সারি বেঁধে পাশবর্তী দেশ থেকে আসতে থাকে বিলগুলোতে। এইসব পরিযায়ী পাখিদের আগমনে হাওর যেন পরিণত হয় স্বর্গোদ্যানে।

মাধবকুন্ড থেকে ফেরার পথে জুরি বাজার নামবেন, CNG সেভাবেই রিজার্ভ করবেন, জুরি বাজারে নামার পর কাউকে জিঙ্গেস করলেই নৌকাঘাট দেখিয়ে দিবে, সেখান থেকে দামাদামি করে নৌকা ঠিক করে নিবেন এবং কয়ঘন্টা ঘুরাবে এটাও ক্লিয়ার করে নিবেন।জুরি নদীতে ২০ মিনিট নৌকা চলার পরই মুল হাওরে যাবেন। হাওর কতটা সুন্দর হতে পারে তা বলে বা কয়েকটা ছবি দেখিয়ে বুঝানো সম্ভব না।আমরা নৌকায় প্রায় ৩.০০/৩.৩০ ঘন্টা ঘুরে ছিলাম নৌকা ভাড়া দিতে হয়েছিলো ৭০০ টাকা বাট মাঝি মামা এবং মাঝির সহযোগী মামা এতটায় ভালো যে আমরা পরে ২০০ টাকা বেশি দিয়েছিলাম। হাকালুকি হাওর ঘোরা শেষে জুরি বাজার থেকে CNG নিয়ে কুলাউরা ষ্টেশনে চলে যাবেন,জুরি থেকে CNG তে কুলাউরা যেতে ৩০ মিনিটের মত লাগে ,রাত ১১.২০ এ উপবন এক্সপ্রেস ট্রেনে ঢাকা ব্যাক করবেন।

খরচ :
ট্রেন টিকেট : ঢাকা-কুলাউরা/কুলাউরা -ঢাকা -৩০০ টাকা
সিএনজি : দরমাম করে ঠিক করে নিবেন।
খাবার: নিজের উপর।
মাধবকুন্ডে ঢোকার টিকেট : ২০ টাকা
নৌকা : ৭০০/৮০০ টাকা

সুন্দর জায়গার সৌন্দর্য ময়লা আবর্জনা ফেলে নষ্ট করবেন না, পরিবেশ রক্ষার দ্বায়িত্ব সবার।প্লাস্টিকের বোতল,পলিথিন যেখানে সেখানে ফেলবেন না।

জয়েন গ্রুপ- ছুটি ট্রাভেল গ্রুপ