৬৮
লোকেশন
১১১
আর্টিকেল
১২০
গ্রুপ ট্যুর
২০০০০+
গ্রুপ মেম্বার
ডে ট্রিপ কুমিল্লা
লেখকঃ


ঘুরতে চাই কিন্তু সময় বের করতে পারছিলাম না। আবার যখন আমি ফ্রি, তখন বাকিদের সময় নেই। অবশেষে ঠিক হলো- লং ট্রিপ যেহেতু হচ্ছে না, একটা ডে ট্রিপই হোক। ঘুরে আসলাম কুমিল্লা থেকে।সকাল সাড়ে সাতটার মধ্যে সবাইকে পিক করা শেষে আমাদের গাড়ি ছুটলো কুমিল্লার পথে। সাথে সঙ্গি ছিলো ঝিরিঝিরি বৃষ্টি। মাঝখানে একটা অখ্যাত হাইওয়ে রেস্টুরেন্টে নাস্তা সেরে কুমিল্লায় গিয়ে পৌছালাম সকাল সাড়ে দশটায়।

আমাদের প্রথম গন্তব্য “ম্যাজিক প্যারাডাইস”। কুমিল্লা ইউনিভার্সিটির পাশ দিয়ে কিছুদূর গেলেই কোটবাড়িতে দেখা মিলবে এই থিম পার্কের। বিশাল ফটকটির দিকে তাকালে মুগ্ধ হতে হয়। টিকেট কেটে ভিতরে ঢুকলাম সবাই। বেশ কিছু ইন্টারেস্টিং রাইড আছে। আলাদা একটা জুরাসিক পার্ক আছে, যেখানে বিশাল বিশাল ডাইনোসর মুখ হা করে গর্জন করে, লেজ নাড়িয়ে আমাদের স্বাগত জানিয়েছে। আমার পৌনে তিন বছরের ছেলে খুব মজা পেয়েছে। সাথে আমরাও। ড্রাই পার্কের সাথেই ওয়াটার পার্ক, যেখানে আছে সুবিশাল ওয়েভ পুলসহ বেশকিছু ওয়াটার রাইড।

ম্যাজিক প্যারাডাইসের সাম্রাজ্য থেকে আমরা যখন বের হলাম তখন দুপুর সোয়া একটা। আমাদের ক্ষুধার্ত পেট ভরতে গাড়ি ছুটলো কুমিল্লার পাদুয়ার বাজারে বিখ্যাত ছন্দু হোটেলে। খাঁটি সরিষার তেল দিয়ে বানানো আলু ভর্তা, গরুর মাংস, পেঁয়ার-মরিচের ভর্তা আর ডাল- এই ছিলো আমাদের মেন্যু। খেয়ে একেকজনের নড়াচড়া বন্ধ হয়ে ছিলো প্রায় আধা ঘন্টা। এমনই মজা ছিলো, শুধু ছন্দু হোটেলে খেতেই আবার কুমিল্লা আসা যায়- এই মর্মে আমরা একমত হলাম।

দুপুরের খাবার খেয়ে মিস্টি পান, চা-কফির পর্ব শেষ করে আমরা গেলাম নব শালবন বৌদ্ধ মন্দিরে। এটা শালবন বিহারের উল্টো পাশেই অবস্থিত। খুব সুন্দর পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন, নিরিবিলি এই মন্দির যে কাউকে মুগ্ধ করবে। ওখান থেকে আমরা গেলাম শালবন বিহারে। গল্প করতে করতে পুরো এলাকাটা চক্কর দিলাম। কুমিল্লা আর মাতৃভান্ডারের রসমালাই- এ দু’টো যেহেতু সমার্থক শব্দ, সুতরাং মাতৃভান্ডারে ঢুঁ না মারা অন্যায়। আমাদের গাড়ি ছুটলো মনোহরপুরের একমাত্র অরিজিনাল মাতৃভান্ডারের উদ্দেশ্যে। বিশাল লাইন ধরে অবশেষে “পাইলাম, ইহাকে পাইলাম”। এরপর ফেরার পথ ধরলাম। একটা জমজমাট ডে ট্রিপ শেষ হলো।

খরচাপাতি
ম্যাজিক প্যারাডাইসের ড্রাই পার্কে এন্ট্রি টিকেট ২০০ টাকা, প্রতি রাইড ১০০ টাকা, ওয়াটার পার্কের এন্ট্রি ৩০০ টাকা আর প্যাকেজ (ড্রাই পার্কে এন্ট্রি + ৩ টি রাইড + ওয়াটার পার্কে এন্ট্রি) ৫০০ টাকা।
শালবন বিহারে এন্ট্রি ২০ টাকা, নব শালবন বৌদ্ধ মন্দিরে এন্ট্রি ২০ টাকা।

জয়েন গ্রুপ- ছুটি ট্রাভেল গ্রুপ